bKesh এর অভিনব প্রতারনার মাধ্যমে টাকা চুরি। সবাই সাবধান।

Advertisemen

নিজে পড়ে অন্যকে শেয়ার করেন।
সংগৃহীতঃ
চরম এক অভিজ্ঞতা হল আজ। বেইলী রোড BFC তে বসে আলাপ করছিলাম এক বন্ধুর সাথে। হঠাৎ ফোন আসল একটা অপরিচিত নাম্বার থেকে। রিসিভ করার পর এক ব্যাক্তি ওপার থেকে জানালেন ভুল বশত আমার bKash একাউন্ট এ ১০২০০ টাকা চলে আসছে। আমি যেন তার টাকাটা ফেরত দিয়ে দেই। আমি বল্লাম কোন ম্যাসেজ তো আসেনি উনি বল্লেন নেটওয়ার্ক সমস্যার কারণে হয়ত ম্যাসেজ আসেনি ব্যালেন্স চেক করে যেন ওনার টাকাটা ফেরত দিয়ে দেই। উনি একবার এর যায়গায দুইবার নাকি ভুল করে আমার নাম্বারে টাকা পাঠিয়ে দিয়েছেন। ফোন কেটে ব্যালেন্স চেক করে দেখলাম ৩০০৪৪ টাকা আছে। ১ মিনিটের মধ্যেই উনি আবার ফোন দিলেন, টাকা পেয়েছি
কিনা জিজ্ঞাসা করলেন আমি বল্লাম ভাই আমার ব্যালেন্স আগে যা ছিল এখনো তাই আছে ৩০০৪৪ টাকা। উনি বল্লেন ভাই তাহলে আমি bKash হেড অফিসে ফোন করে ব্যাপারটা দেখতেছি। ফোন রাখলাম কিছুক্ষণের মধ্যেই একটা ম্যাসেজ আসল ক্যাশ ইন হয়েছে ১০২০০ টাকা নতুন ব্যালেন্স ৪০২৪৪ টাকা। আমি ওনার টাকাটা ফেরৎ দিতে যাব এমন সময় আবার ফোন। জিজ্ঞাস করলেন ম্যাসেজ আসছে কিনা। বল্লাম আসছে। তখন উনি বল্লেন এক মহিলার
টাকা ভুল করে আমার মোবাইল এ পাঠিয়ে দিয়েছেন। এখনি যাতে পাঠিয়ে দেই। আমি বল্লাম ঠিক আছে পাঠিয়ে দিচ্ছি। সন্দেহ হল একবার বল্লেন ভুল করে আমার নাম্বারে দুইবার টাকা পাঠাইছে আবার বল্লেন এক মহিলার টাকা ভুল করে আমার নাম্বারে চলে আসছে। কিছুদিন আগে bKesh সম্পর্কে একটা পোষ্ট ফেইসবুকে পরেছিলাম তাই রক্ষা। আমি আবার ম্যাসেজ চেক করলাম দেখলাম Sender: bKesh বুঝলাম ক্ষপ্পরে পরেছি। ব্যালেন্স চেক করতে যাব তখনি আবার ফোন। আমি বল্লাম ভাই bKesh থেকে আমার একাউন্ট এ ১০২০০ টাকা আসছে। আমার তো bKesh একাউন্ট ই নেই আপনি যদি আপনার ঠিকানাটা একটু বলতেন আমি নাহয় এসে আপনাকে টাকাটা দিয়ে যেতাম। উনি বল্লেন কি বলেন এইসব bKash থেকেই টাকা গেছে আপনি bKash কোম্পানির এস.আর এর সাথে কথা বলেন। অন্য এক ব্যাক্তি ফোন ধরেই বল্লেন আমি যাতে টাকাটা ফেরৎ দিয়ে দেই। আমি জিজ্ঞাস করলাম ভাই আপনার কোম্পানির নামটা একটু বানান করে বলবেন প্লীজ? উনি একটু রেগে গিয়েই বল্লেন আমি নাকি আজে বাজে কথা বলছি। পরে আবার বল্লেন নেটওয়ার্ক সমস্যার কারণে বানান ভুল হয়েছে এবং আমার ব্যালেন্স নাকি ক্যাশ আউট ব্যালেন্স এ যোগ হয়েছে আমি ফোন না কে্টেই যেন *২৪৭# ডায়েল করি উনি প্রসেসটা বলবেন আর আমি যেন ফলো করি। বল্লাম বাটপারী
কবে থেইকা শুরু করছেন? ওপাশ থেকে তখন বিভিন্ন হুমকি ধামকি ও গালিগালাজ শুনে ফোন রেখে দিলাম। বার বার ফোন দিচ্ছিল তাই ফোন বন্ধ করে দেই। হঠাৎ চিন্তা হল আমার একাউন্ট এ লাষ্ট ৩ টা ট্রানজেকশন এর এমাউন্ট সেইম ১০২০০ কিন্তু এই বাটপার লোকজন কিভাবে এক্সেক্টলি সেইম এমাউন্ট ক্লেইম করলো? আবার মোবাইল চালু করতেই দেখলাম ১০ টাকা ওই নাম্বার থেকে পাঠিয়েছে। আমি সেইফটির জন্য টাকা অন্য একটা এ্যাকাউন্ট এ ট্রান্সফার করতে গেলাম দেখলাম আমার এ্যাকাউন্ট ব্লক্ড!!! তাৎক্ষনাত bKash কাষ্টমার কেয়ারে ফোন করে যানলাম আমার এ্যাকাউন্ট ব্লক্ড কিন্তু কারণ অজানা। কাষ্টমার কেয়ার প্রতিনিধি সিকিউরিটি ভ্যারিফিকেশন করে এ্যাকাউন্ট চালু করে দিলে আমি সব ব্যালেন্স ক্যাশ আউট ও অন্য এ্যাকাউন্ট এ ট্রান্সফার করে ফেলি। ইনসিকিওরড ফিল করছি bKash এ লেনদেন করতে। অবশ্যই bKash এর কোন কর্মকর্তা কর্মচারী এই চক্রের সাথে জড়িত। নতুবা তারা আমার ট্রানজেকশন হিষ্টরী কিভাবে জানলো? সকলকে সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করছি।


ফেসবুক থেকে সংগৃহীত 
Advertisemen

Disclaimer: Gambar, artikel ataupun video yang ada di web ini terkadang berasal dari berbagai sumber media lain. Hak Cipta sepenuhnya dipegang oleh sumber tersebut. Jika ada masalah terkait hal ini, Anda dapat menghubungi kami disini.
Related Posts
Disqus Comments